ইজতেমা শব্দটি আরবি ভাষা থেকে এসেছে যার অর্থ “সমাবেশ”, “সম্মেলন”, “মিলাপ”, “একত্রিত হওয়া” ইত্যাদি।

ইসলামী পরিভাষায়, ইজতেমা বলতে মুসলিমদের ধর্মীয় জ্ঞান বৃদ্ধি, ঈমানের দৃঢ়তা বৃদ্ধি এবং দ্বীনের প্রচারের জন্য আয়োজিত বড় ধরনের সমাবেশকে বোঝায়।

বিভিন্ন ধরণের ইজতেমা:

  • বিশ্ব ইজতেমা: তাবলিগ জামায়াত কর্তৃক বাংলাদেশের টঙ্গীতে প্রতিবছর দু’বার (শীত ও বসন্তকালে) অনুষ্ঠিত বিশ্বের বৃহত্তম ধর্মীয় সমাবেশ।
  • আঞ্চলিক ইজতেমা: নির্দিষ্ট কোনো এলাকার মুসলিমদের জন্য আয়োজিত ইজতেমা।
  • জেলা ইজতেমা: কোনো জেলার মুসলিমদের জন্য আয়োজিত ইজতেমা।
  • থানা ইজতেমা: কোনো থানার মুসলিমদের জন্য আয়োজিত ইজতেমা।

ইজতেমার উদ্দেশ্য:

  • ঈমান ও আমলের জ্ঞান বৃদ্ধি করা।
  • দ্বীনের প্রচার ও প্রসার করা।
  • মুসলিমদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ ও ঐক্য স্থাপন করা।
  • নেককার্যে উৎসাহিত করা।
  • পাপাচার থেকে বিরত রাখা।

ইজতেমার কার্যক্রম:

  • ধর্মীয় বক্তৃতা ও ভাষণ।
  • কুরআন তিলাওয়াত ও হাদিস বর্ণনা।
  • দোয়া ও মোনাজাত।
  • জামায়াতে নামাজ।
  • দ্বীনি আলোচনা ও প্রশ্নোত্তর।
  • গোষ্ঠী আলোচনা।
  • দাওয়াতি কাজের পরিকল্পনা।

ইজতেমার গুরুত্ব:

  • ইজতেমা মুসলিমদের ঈমান ও আমলের জ্ঞান বৃদ্ধি করে।
  • ইজতেমা দ্বীনের প্রচার ও প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
  • ইজতেমা মুসলিমদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ ও ঐক্য স্থাপন করে।
  • ইজতেমা নেককার্যে উৎসাহিত করে এবং পাপাচার থেকে বিরত রাখে।

আশা করি, এই তথ্যগুলো আপনার প্রশ্নের উত্তর দিতে সাহায্য করবে।

Categorized in: