পিরিয়ড বা মাসিক বা ঋতুস্রাব হলো নারীদের একটি স্বাভাবিক শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া। প্রতি মাসে এটি হয় বলে এটিকে বাংলায় সচরাচর মাসিক বলেও অভিহিত করা হয়। পিরিয়ড শুরু হয় যখন একজন নারী বয়ঃসন্ধিতে উপনীত হয় (সাধারণত ১০ থেকে ১৪ বছর বয়সের মধ্যে শুরু হয়) এবং প্রায় 45 থেকে 55 বছর বয়সে মনোপজ পর্যন্ত চলতে থাকে।

পিরিয়ডের সময়, ডিম্বাশয়ে ডিম্বস্ফোটন হয় এবং ডিম্বাণু ফ্যালোপিয়ন টিউব দিয়ে জরায়ুতে চলে আসে। যদি ডিম্বাণু নিষিক্ত না হয়, তাহলে জরায়ুর অভ্যন্তরীণ আস্তরণ (এন্ডমেট্রিয়াম) ভেঙে পড়ে এবং রক্তের সাথে বেরিয়ে আসে। এটিই হলো পিরিয়ডের রক্ত।

পিরিয়ডের সাধারণ লক্ষণগুলো হলো:

  • রক্তপাত
  • পেটে ব্যথা
  • মাথাব্যথা
  • পিঠে ব্যথা
  • ক্লান্তি
  • স্তন কোমলতা
  • মেজাজ পরিবর্তন

পিরিয়ডের সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার দিকে বিশেষ নজর দেওয়া উচিত। ন্যাপকিন, ট্যাম্পন বা মেনস্ট্রুয়াল কাপ ব্যবহার করে রক্তপাত নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে। পিরিয়ডের সময় যৌন মিলন থেকে বিরত থাকা উচিত।

পিরিয়ডের সময় কিছু উপসর্গ দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। যেমন:

  • খুব বেশি রক্তপাত
  • তীব্র পেটে ব্যথা
  • জ্বর
  • যোনিপথে দুর্গন্ধ

পিরিয়ড হলো নারীদের প্রজনন ক্ষমতার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। পিরিয়ড সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এবং পিরিয়ডের সময় নারীদের স্বাস্থ্যবিধির দিকে নজর দেওয়ার জন্য কাজ করা উচিত।