অম্বুবাচী হল হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের একটি গুরুত্বপূর্ণ বাৎসরিক উৎসব। লোকবিশ্বাস অনুসারে, আষাঢ় মাসের ৭ তারিখে মৃগশিরা নক্ষত্রের তিনটি পদ শেষ হলে পৃথিবী বা ধরিত্রী ঋতুমতী হন। এই সময়টিকেই অম্বুবাচী বলা হয়।

অম্বুবাচীর তাৎপর্য:

  • ধরিত্রীর ঋতুকাল: ধারণা করা হয় এই সময় পৃথিবী ঋতুমতী হন এবং তার ঋতুস্রাবের রক্ত কামাখ্যা মন্দিরের গর্ভগৃহে প্রবাহিত হয়।
  • শক্তির উৎসব: দেবী কামাখ্যাকে শক্তির দেবী হিসেবে পূজা করা হয়। অম্বুবাচী উৎসব দেবীর শক্তি ও প্রজনন ক্ষমতার প্রতি श्रद्धাঞ্জলি।
  • পুনর্জন্ম ও নবজাগরণের প্রতীক: প্রকৃতির নবজাগরণ ও নতুন করে শুরু করার প্রতীক হিসেবেও অম্বুবাচী পালিত হয়।

অম্বুবাচী পালন:

  • কামাখ্যা মন্দির: অম্বুবাচীর কেন্দ্রবিন্দু হল আসামের গুয়াহাটিতে অবস্থিত কামাখ্যা মন্দির। এই সময় মন্দিরের দরজা বন্ধ থাকে এবং বিশেষ পূজা অনুষ্ঠিত হয়।
  • অন্যান্য ప్రాంత: বাংলার কিছু অংশে, বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে, মহিলারা এই সময় বিশেষ ব্রত পালন করে থাকেন।
  • রীতিনীতি: অম্বুবাচীর সময় কোন শুভ কাজ করা হয় না। মাংস খাওয়া, চুল কাটা ইত্যাদি নিষিদ্ধ থাকে।

Categorized in: